মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সেবার তালিকা

মোটরযান নিবন্ধন সংক্রান্ত

মোটরযান নিবন্ধন- সেবাপ্রত্যাশী সংশ্লিষ্ট বিআরটিএ অফিসে নির্ধারিত ফরমে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ তাঁর মোটরযানের রেজিস্ট্রেশনের জন্য আবেদন করবেন। অত:পর বিআরটিএ অফিস কর্তৃক তাঁর আবেদন ও সংযুক্ত দালিলাদি যাচাই-বাছাই করে সঠিক পাওয়া গেলে গ্রাহককে প্রয়োজনীয় রেজিস্ট্রেশন ফি জমা প্রদান করতে একটি এ্যাসেসমেন্ট স্লিপ প্রদান করা হবে এবং ফি জমা প্রদানের পর গাড়িটি পরিদর্শণের জন্য বিআরটিএ অফিসে হাজির করতে হবে। গাড়িটি পরিদর্শণ করার পর মালিকানা ও গাড়ি সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য বিআরটিএ ইনফরমেশন সিস্টেমে এন্টি পর সহকারী পরিচালক(ইঞ্জি:) কর্তৃক রেজিস্টেশনের অনুমোদন প্রদান করা হয় এবং রেজিস্ট্রেশন রেজিস্ট্রেশন নম্বর উল্লেখপূর্বক একটি প্রাপ্তিস্বীকারপত্র, ফিটনেস সার্টিফিকেট ও ট্যাক্স টোকেন প্রিন্ট করে সংশ্লিস্ট কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর করত: গ্রাহককে প্রদান করা হয়। ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট(ডিআরসি) তৈরীর নিমিত্ত গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স (ডিজিটাল ছবি, ডিজিটাল স্বাক্ষর ও আঙ্গুলের ছাপ) প্রদানের জন্য গ্রাহককে সংশ্লিষ্ট অফিসে উপস্থিত হতে হবে; এজন্য গ্রাহককে তার মোবাইল ফোনে এসএমএস এর মাধ্যমে অবগত করা হয়। বায়োমেট্রিক্স প্রদানের পর ডিআরসি গ্রহণের জন্যও গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে অবগত করা হয়।

 ১ । মালিক ও আমদানিকারক/ডিলার কর্তৃক যথাযথভাবে পূরণ ও স্বাক্ষর করা নির্ধারিত আবেদনপত্র[ আবেদন ফরম এ ওয়েবসাইটের

     DOWNLOAD FORMS থেকে বা বিআরটিএ অফিস হতে সংগ্রহ করা যাবে[;

     - একাধিক ব্যক্তি যৌথভাবে কোনো গাড়ির মালিক হলে সে-ক্ষেত্রে একজনের নামে রেজিস্ট্রেশনের জন্য সকলের

       সম্মতি সম্বলিত হলফনামা;

     - প্রতিষ্ঠান/কোম্পানির ক্ষেত্রে স্বাক্ষর ও সিলমোহর;

     - ব্যাংক অথবা অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠানের সাথে গাড়ির মালিকানার আর্থিক সংশ্লিষ্টতা থাকলে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্যাডে

       রেজিস্ট্রেশন কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন;

২ । বিল অব এন্ট্রি, ইনভয়েস, বিল অব লেডিং ও এলসিএ কপি;

৩ । সেল সার্টিফিকেট /সেল ইন্টিমেশন/বিক্রয় প্রমাণপত্র (আমদানিকারক/বিক্রেতা প্রদত্ত);

৪ । প্যাকিং লিস্ট, ডেলিভারী চালান ও গেইট পাশ (সিকেডি গাড়ির ক্ষেত্রে);

৫ । টিন সার্টিফিকেট এবং অগ্রিম/অনুমিত আয়কর প্রদানের প্রমাণপত্র;

৬ । বিদেশি নাগরিকের নামে রেজিস্ট্রেশন/মালিকানা বদলি হলে বাংলাদেশের ওয়ার্ক পারমিট এবংভিসার মেয়াদের কপি;

৭ । (ক) মূসক-১ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে), (খ) মূসক-১১(ক)/ভ্যাট (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে), (গ) ভ্যাট পরিশোধের চালান(প্রযোজ্য ক্ষেত্রে )

৮ । প্রস্ত্ততকারক/বিআরটিএ কর্তৃক অনুমোদিত বডি ও আসন ব্যবস্থার স্পেসিফিকেশন সম্বলিত ড্রইং (বাস, ট্রাক, হিউম্যান হলার, ডেলিভারী ভ্যান, অটো টেম্পু ইত্যাদি মোটরযানের ক্ষেত্রে);

৯ । সিকেডি মোটরযানের ক্ষেত্রে বিআরটিএ’র টাইপ অনুমোদন ও অনুমোদিত সংযোজনী তালিকা;

১০। বডি ভ্যাট চালান ও ভ্যাট পরিশোধের রসিদ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে);

১১। প্রযোজ্য রেজিস্ট্রেশন ফি জমাদানের রসিদ;

১২। কাস্টমস্ কর্তৃপক্ষ ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ছাড়পত্র (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে);

১৩। ব্যক্তি মালিকানাধীন আবেদনকারীর ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্র/পাসপোর্ট/টেলিফোন বিল/বিদ্যুৎ বিল ইত্যাদির যে-

     কোনটির সত্যায়িত ফটোকপি এবং মালিক প্রতিষ্ঠান হলে প্রতিষ্ঠানের প্যাডে চিঠি;

১৪। নিলামে ক্রয়কৃত প্রতিরক্ষা বিভাগের গাড়ির ক্ষেত্রে লগবুকে বর্ণিত প্রস্ত্ততকাল ও প্রস্ত্ততকারকের বিস্তারিত বিবরণ

     সম্বলিত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদত্ত ছাড়পত্র;

১৫। নিলামে ক্রয়কৃত সরকারি/আধাসরকারি/স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের গাড়ির ক্ষেত্রে নিলাম সংক্রান্ত কাগজপত্র এবং

     মেরামতের বিস্তারিত বিবরণ।

১৬। বিকন্ডিশন্ড মোটরযান রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত অতিরিক্ত কাগজপত্র প্রয়োজন হবে-

    ক) ‘টিও’ ফরম (ক্রেতা কর্তৃক স্বাক্ষরিত), ‘টিটিও’ ফরম ও বিক্রয় রসিদ (আমদানিকারক কর্তৃক স্বাক্ষরিত)।

   খ) ডি-রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটের মূল কপি এবং ডি-রেজিস্ট্রেশনের ইংরেজি অনুবাদের সত্যায়িত কপি (সার্টিফিকেট

       অব ক্যানসেলেশন এর সত্যায়িত কপি);

   গ) এক কপিতে একাধিক গাড়ির বর্ণনা থাকলে মূলকপি প্রদর্শনপূর্বক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ/বিভাগ কর্তৃক সত্যায়িত কপি

       দাখিল করা যাবে।

১৭। মোটরযান পরিদর্শক কর্তৃক গাড়িটির পরিদর্শন প্রতিবেদন;

  •  

মালিকানা বদলী- মালিকানা বদলীর ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র (ওয়ারিশসূত্রে প্রাপ্ত মালিকানা ব্যতিত):

 ক্রেতার করণীয়ঃ

১। পূরণকৃত ও স্বাক্ষরিত ‘টিও’ ও ‘টিটিও’ ফরম; [এ দু’টি ফরমসহ অন্যান্য ফরম এ ওয়েবসাইটেরDOWNLOAD FORMS থেকে পাওয়া যাবে]

২। প্রয়োজনীয় ফি জমা দানের রশিদ;

৩। ক্রেতার TIN সার্টিফিকেটের সত্যায়িত কপি (ভাড়ায় চালীত নহে এমন কার, জিপ, মাইক্রোবাস-এর ক্ষেত্রে)

৪। মূল রেজিস্ট্রেশন সনদ (উভয় কপি)/ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট(প্রযোজ্য ক্ষেত্রে);

৫। ছবিসহ নন-জুডিসিয়াল স্ট্যাম্পে ওয়ারিশগণের হলফনামা [একাধিক ওয়ারিশ থাকলে এবং একজনের নামে মালিকানা প্রদান করা হলে অন্যান্য

   ওয়ারিশগণ কর্তৃক স্ট্যাম্পে আর একটি হলফনামা দিতে হবে];

৬। সংশ্লিষ্ট নমুনা স্বাক্ষর ফরমে ত্রেতার নমুনা স্বাক্ষর এবং ইংরেজীতে নাম, পিতার/স্বামীর নাম, পর্ণ ঠিকানা ও 3 কপি স্ট্যাম্প আকারের রঙ্গীন ফটোসহ ফরমের অন্যান্য সকল তথ্য প্রদান, তবে ক্রেতা কোন প্রতিষ্ঠান হলে, উপরে বর্ণিত কাগজপত্রসহ (হলফনামা ব্যতিত) অফিসিয়াল প্যাডে চিঠি।

 

 বিক্রেতার করণীয়ঃ

 

১। ফরম ‘টিটিও’ এবং বিক্রয় রশিদে স্বাক্ষর;

২। বিক্রেতার ছবিসহ বিক্রয় হলফনামা;

৩। বিক্রেতা কোম্পানী হলে কোম্পানীর লেটার হেড প্যাডে ইন্টিমেশন, বোর্ড রেজিুলেশন ও অথরাইজেশন পত্র প্রদান;

৪। মোটরযানটি ব্যাংক অথবা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের নিকট দায়বদ্ধ থাকলে দায়বদ্ধকারী প্রতিষ্ঠানের ঋণ পরিশোদ সংক্রান্ত ছাড়পত্র সংগ্রহ করে তা দাখিল করা;

 

ওয়ারিশ সূত্রে মালিকানা বদলীর ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

 

১। পূরণকৃত ও স্বাক্ষরিত ‘টিও’ ও ‘টিটিও’ ফরম [এ দু’টি ফরমসহ অন্যান্য ফরম এ ওয়েবসাইটেরDOWNLOAD FORMS থেকে পাওয়া যাবে];

২। কোর্ট/স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান প্রদত্ত ওয়ারিশ সংক্রান্ত সনদ;

৩। প্রয়োজনীয় ফি জমা দানের রশিদ;

৪। একাধিক ওয়ারিশ থাকলে প্রথম ওয়ারিশের TIN সার্টিফিকেটের সত্যায়িত কপি (ভাড়ায় চালীত নহে এমন কার, জিপ, মাইক্রোবাস-এর ক্ষেত্রে)

৫। মূল রেজিস্ট্রেশন সনদ (উভয় কপি)/ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট(প্রযোজ্য ক্ষেত্রে);

৬। ছবিসহ নন-জুডিসিয়াল স্ট্যাম্পে ওয়ারিশসূত্রে মালিকানা প্রাপ্তি সংক্রান্ত ওয়ারিশগণের হলফনামা [একাধিক ওয়ারিশ থাকলে এবং একজনের নামে মালিকানা প্রদান করা হলে সেক্ষেত্রে অন্যান্য ওয়ারিশগণ কর্তৃক সকলের ছবিসহ নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে আর একটি হলফনামা];

৭। নমুনা স্বাক্ষর ফর্মে নমুনা স্বাক্ষর এবং ইংরেজীতে নাম, পিতার/স্বামীর নাম, পর্ণ ঠিকানা ও 3 কপি স্ট্যাম্প আকারের রঙ্গীন

   ফটোসহ ফরমের অন্যান্য তথ্য পূরণ

রেট্রো-রিফ্লেক্টিভ নম্বর প্লেট-অত্যাধুনিক নম্বর প্লেটঃ

মোটরযানে ডিজিটাল নম্বর প্লেট সংযোজনের জন্য গ্রাহককে মোটরযানের ট্যাক্স টোকেন ও ফিটনেস হালনাগাদ স্বাপেক্ষে নির্ধারিত ফি জমাদনকরত সংশ্লিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

১। প্রয়োজনীয় ফি প্রদানের রশিদ;

২। রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটের সত্যায়িত ফটোকপি;

৩। ফিটনেস সার্টিফিকেটের সত্যায়িত ফটোকপি;

৪। হালনাগাদ ট্যাক্স টোকেন এর সত্যায়িত ফটোকপি;

 

গাড়িতে নাম্বারপ্লেট সংযোজনের জন্য এ্যাপয়েন্টমেন্ট পদ্ধতিঃ

    এ্যাপয়েন্টমেন্টের জন্য ব্যাংকে টাকা জমা দেয়ার সময় প্রদত্ত মোবাইল নাম্বার থেকে নিম্নলিখিত পদ্ধতিতে এসএমএস করুনঃ

     NPADate এবং পঠিয়েদিন 6969 নাম্বারে।

    যেমনঃ চলতি মাসের ১৫ তারিখ এ্যাপয়েন্টমেন্ট করার জন্য এভাবে লিখুন –

    NP A 15 এবং 6969 নাম্বারে Send করুন।

   ফিরতি এসএমএস-এর মাধ্যমে আপনাকে গাড়িতে নাম্বারপ্লেট সংযোজনের জন্য এ্যাপয়েন্টমেন্টের সময় জানিয়ে দেয়া হবে।

   উক্ত ফিরতি এসএমএস, ফি প্রদানের রশিদ ও অন্যান্য কগজপত্রসহ নিধারিত সময়ে নাম্বারপ্লেট সংযোজনের জন্য বিআরটিএ’র সার্কে ল অফিসে গাড়ি হাজির করতে হবে।

ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট– পেপারবুক ফরমেটের রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট এর পরিবর্তে এবং নতুন রেজিস্ট্রেশনকৃত মোটরযানের ইলেক্ট্রনিক চিপযুক্ত উচ্চ নিরাপত্তা ফিচারসমৃদ্ধ ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট (ডিআরসি) প্রদান করা হচ্ছে। ডিআরসি এর ফি জমা প্রদানের পর গ্রাহককে বায়োমেট্রিক্স (চার আঙুলের ছাপ, ডিজিটাল ছবি ও স্বাক্ষর) প্রদানের জন্য এসএমএস এর মাধ্যমে অবহিত করা হয়। বায়োমেট্রিক্স প্রদানের জন্য গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে এ্যাপয়েন্টমেন্ট গ্রহণ করতে হয়। ডিআরসি তৈরী হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে অবহিত করা হয় এবং একইভাবে এ্যাপয়েন্টমেন্ট গ্রহণ করে গ্রাহক নির্ধারিত সময়ে ডিআরসি গ্রহণ করতে পারেন। ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট-এর বায়োমেট্রিক্স (ছবি, আঙ্গুলের ছাপ ও স্বাক্ষর) প্রদানের জন্য নিমণবর্ণিত কাগজপত্র অবশ্যই সঙ্গে আনতে হবে-

² ডিআরসি এর জন্য প্রযোজ্য ফি জমা রশিদের মূল কপি (৫৫৫/-) ও এক সেট ফটোকপি (A4 সাইজ);

² রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট/প্রাপ্তিস্বীকার রশিদ এর মূল কপি ও এক সেট ফটোকপি (A4 সাইজ);

² জাতীয় পরিচয়পত্র/ড্রাইভিং লাইসেন্স (স্মার্ট কার্ড)/মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট এর মূল কপিসহ এক সেট ফটোকপি; 

 ক) ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটের জন্য বায়োমেট্রিক্স প্রদানে এ্যাপয়েন্টমেন্ট গ্রহণের পদ্ধতি: 

মোবাইলের এসএমএস অপশনে গিয়ে NPSpace>BDate টাইপ কওে ৬৯৬৯ নম্বরে প্রেরণ করতে হবে। যেমনঃ আপনার পছন্দ অনুযায়ী ১৫ ফেব্রম্নয়ারি তারিখের জন্য APPOINTMENT করতে চাইলে NP B ১৫ লিখে ৬৯৬৯ নম্বরে প্রেরণ করতে হবে। উলেস্নখ্য যে, এসএমএস (পছন্দ তারিখ) এর ক্ষেত্রে মাস, বছর, লেখার প্রয়োজন নাই। আপনার মোবাইলে ফিরতি ম্যাসেজে উলেস্নখিত সময়ে এসে বায়োমেট্রিক্স প্রদান করা যাবে।

খ)  ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট গ্রহণের জন্য নিমেণাক্তভাবে এ্যাপয়েন্টমেন্ট গ্রহণ করতে হবে:

মোবাইলের এসএমএস অশনে গিয়ে NPCDate টাইপ করে ৬৯৬৯ নম্বরে প্রেরণ করতে হবে। যেমনঃ আপনার পছন্দ অনুযায়ী ২০ ফেব্রুয়ারি তারিখের জন্য APPOINTMENT করতে চাইলে  NP B ২০ লিখে ৬৯৬৯ নম্বরে প্রেরণ করতে হবে। ফিরতি ম্যাসেজ উল্লেখিত সময়ে এসে ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট গ্রহণ করা যাবে। নির্ধারিত তারিখে সার্টিফিকেট গ্রহণ করা সম্ভব না হলে একই  পদ্ধতিতে পুনরায় এ্যাপয়েন্টমেন্ট গ্রহণ করা যাবে।

গ) ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটের প্রতিলিপি (মুল কপি হারিয়ে গেলে):

² নির্ধারিত ফরমে আবেদন;

 ² প্রযোজ্য ফি জমাদানের রশিদ;

² সংশ্লিষ্ট নমুনা স্বাক্ষর ফর্মে ইংরেজিতে নাম পিতা/স্বামীর নামসহ পূর্ণ ঠিকানা ও ৩(তিন) কপি স্ট্যাম্প সাইজের ছবিসহ ফরমের অন্যান্য সকল তথ্য প্রদান। গাড়িটি কোম্পানী, ব্যাংক বা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন হলে তাদের নিজস্ব লেটার হেড প্যাডে চিঠি, সংশ্লিষ্ট ফরমে নমুনা স্বাক্ষর এবং ইংরেজিতে প্রতিষ্ঠানের নাম ঠিকানাসহ অন্যান্য তথ্য;

    ² গাড়ির নম্বরসহ ফি জমা রশিদ প্রদর্শণ এবং ট্যাক্স, ফিটনেস ও রম্নট পারমিটের (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) হালনাগাদ ফটোকপি,  হালনাগাদ না থাকলে গাড়ি সরেজমিনে পরিদর্শণের জন্য অফিসে হাজির করা। যদি রেজিস্ট্রেশন সনদ হারানো যায়, তবে উপরোক্ত তথ্যসহ নিমেণর তথ্যাদি প্রদানঃ
=> থানার জিডির কপি;
=> নন এফ আইআর মামলা সংক্রামত্ম পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের ছাড়পত্র;
=>  আবেদনকারীর স্বাক্ষরের গরমিল পরিলক্ষিত হলে সংশ্লিষ্ট অফিসে উপস্থিত হয়ে আবেদনপত্রে স্বাক্ষর প্রদান ইত্যাদি।

হেল্প লাইনঃ ০১৭৯০-৫৪০২১০, ০১৭৯০-৫৪০২১১ ( সরকারী ছুটি ও সাপ্তাহিক বন্ধের দিন ব্যতীত সকাল ৯:০০ টা থেকে বিকেল ০৫:০০টা পর্যন্ত)

 

ড্রাইভিং লাইসেন্স

ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়ন-

ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্তির প্রক্রিয়া :

ড্রাইভিং লাইসেন্সের পূর্বশর্ত হলো লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স। 
গ্রাহককে প্রথমে লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদন করতে হবে। গ্রাহককে তার স্থায়ী ঠিকানা বা বর্তমান ঠিকানা (প্রয়োজনীয় প্রমাণাদিসহ) বিআরটিএ’র যে সার্কেলের আওতাভূক্ত তাকে সেই সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। সার্কেল অফিস কর্তৃপক্ষ তাকে একটি শিক্ষানবিস বা লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করবে যা দিয়ে আবেদনকারী ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারবে। ২/৩ মাস প্রশিক্ষণ গ্রহণের পর তাকে নির্ধারিত তারিখ ও সময়ে নির্ধারিত কেন্দ্রে লিখিত, মৌখিক ও ফিল্ড টেস্ট-এ অংশ গ্রহণ করতে হবে। এসময় প্রার্থীকে তার লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স (মূল কপি) ও লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কলম সাথে আনতে হবে। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য বয়স ন্যূনতম ২০ বছর এবং অপেশাদার এর জন্য ন্যূনতম ১৮ বছর হতে হবে।

লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:
১। নির্ধারিত ফরমে আবেদন।
২। রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট।
৩। ন্যাশনাল আইডি কার্ড / জন্ম সনদ/পাসপোর্ট এর সত্যায়িত ফটোকপি।
৪। নির্ধারিত ফী, ১ ক্যাটাগরি-৩৪৫/-টাকা ও ২ ক্যাটাগরি-৫১৮/-টাকা বিআরটিএ’র

 

নির্ধারিত ব্যাংকে (ব্যাংক এর তালিকা www.brta.gov.bd –তে পাওয়া যাবে) জমাদানের রশিদ।
৫। সদ্য তোলা ০৩ কপি স্ট্যাম্প ও ০১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

লিখিত, মৌখিক ও ফিল্ড টেস্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর পুনরায় একটি নির্ধারিত ফরমে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও ফী প্রদান করে স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য সংশিস্নষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স (ডিজিটাল ছবি, ডিজিটাল স্বাক্ষর ও আঙ্গুলের ছাপ) গ্রহণপূর্বক স্মার্ট কার্ড ইস্যু করা হয়। স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রন্টিং সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে তা গ্রহণের বিষয়টি জানিয়ে দেয়া হয়।

স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:
১। নির্ধারিত ফরমে আবেদন।
২। রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট।
৩। ন্যাশনাল আইডি কার্ড / জন্ম সনদ/পাসপোর্ট এর সত্যায়িত ফটোকপি।
৪। নির্ধারিত ফী (পেশাদার- 1679/-টাকা ও অপেশাদার- ২৫৪২/-টাকা) বিআরটিএ’র নির্ধারিত ব্যাংকে জমাদানের রশিদ।
৫। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য পুলিশি তদন্ত প্রতিবেদন।
৬। সদ্য তোলা ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

 

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের প্রকৃতিঃ 
(১) পেশাদার হালকা (মোটরযানের ওজন ২৫০০কেজি-এর নিচে) ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য প্রার্থীর বয়স কমপক্ষে ২০ বছর হতে হবে, (২) পেশাদার মধ্যম (মোটরযানের ওজন ২৫০০ থেকে ৬৫০০ কেজি) ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য প্রার্থীর বয়স কমপক্ষে ২৩ বছর হতে হবে এবং পেশাদার হালকা ড্রাইভিং লাইসেন্সের ব্যবহার কমপক্ষে ০৩ বছর হতে হবে।
(৩) পেশাদার ভারী (মোটরযানের ওজন ৬৫০০ কেজির বেশী) ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য প্রার্থীর বয়স কমপক্ষে ২৬ বছর হতে হবে এবং পেশাদার মধ্যম ড্রাইভিং লাইসেন্সের ব্যবহার কমপক্ষে ০৩ বছর হতে হবে।

 

[বি:দ্র: পেশাদার ভারী ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্তির জন্য প্রার্থীকে প্রথমে হালাকা ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে হবে এর ন্যূনতম তিন বছর পর তিনি পেশাদার মিডিয়াম ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য আবেদন করতে পারবেন এবং মিডিয়ম ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার কমপক্ষে ০৩ (তিন) বছর পর ভারী ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। ]

 

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন প্রক্রিয়া:

(ক) অপেশাদারঃ 
গ্রাহককে প্রথমে নির্ধারিত ফি ( মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে ২৪২৭/- টাকা ও মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ২০০/- টাকা জরিমানাসহ) জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্র ও সংযুক্ত কাগজপত্র সঠিক পাওয়া গেলে একইদিনে গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স (ডিজিটাল ছবি, ডিজিটাল স্বাক্ষর ও আঙ্গুলের ছাপ) গ্রহণ করা হয়। স্মার্ট কার্ড wপ্রন্টিং সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়।

(খ) পেশাদারঃ
পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সধারীদেরকে পুনরায় একটি ব্যবহারিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। পরীক্ষায় উত্ত্তীর্ণ হওয়ার পর নির্ধারিত ফি ( মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে ১৫৬৫/- টাকা ও মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ২০০/- টাকা জরিমানাসহ ) জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স (ডিজিটাল ছবি, ডিজিটাল স্বাক্ষর ও আঙ্গুলের ছাপ) গ্রহণের জন্য গ্রাহককে নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে উপস্থিত হতে হয়। স্মার্ট কার্ড wপ্রন্টিং-এর সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:
১। নির্ধারিত ফরমে আবেদন।
২। রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট।
৩। ন্যাশনাল আইডি কার্ড / জন্ম সনদ/পাসপোর্ট এর সত্যায়িত ফটোকপি।
৪। নির্ধারিত ফী জমাদানের রশিদ।
৫। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর জন্য পুলিশি তদন্ত প্রতিবেদন।
৬। সদ্য তোলা ১ কপি পাসপোর্ট ও ১কপি স্ট্যাম্প সাইজ ছবি।

 

ডুপ্লিকেট লাইসেন্স প্রাপ্তির প্রক্রিয়া :

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:
১। নির্ধারিত ফরমে আবেদন।
২। জিডি কপি ও ট্রাফিক ক্লিয়ারেন্স।
৩। নির্ধারিত ফী (হাই সিকিউরিউটি ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে ৮৭৫/-টাকা) বিআরটিএ’র নির্ধারিত ব্যাংকে জমাদানের রশিদ।
৪। সদ্য তোলা ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি। 

লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর ফর্ম-এর জন্য নিচের লিংক-এ ক্লিক করুনঃ

http://www.brta.gov.bd/images/files/formfee/app_for_learners_driving_license.pdf


ড্রাইভিং লাইসেন্স-এর ফর্ম-এর জন্য নিচের লিংক-এ ক্লিক করুনঃ

http://www.brta.gov.bd/images/files/formfee/latest_dl_form.pdf

মেডিক্যাল সার্টিফিকেটের জন্য নিচের লিংক-এ ক্লিক করুনঃ
http://www.brta.gov.bd/images/files/formfee/brta_application_form_medical_report-1.pdf

 

মোটরযানের ফিটনেস

ফিটনেস ইস্যু ও নবায়ন- সর্বশেষ বিআরটিএ’র যে সার্কেল অফিস হতে সেবাগ্রহণকারী তার মোটরযানের রেজিস্ট্রেশন গ্রহণ বা ফিটনেস নবায়ন করেছেন উক্ত সার্কেল অফিসে নির্ধারিত ফরমে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ তার মোটরযানের ফিটনেস নবায়নের জন্য আবেদন করবেন এবং পরিদর্শনের জন্য মোটরযানটি ঐ অফিসে হাজির করবেন।

 

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

১। নির্ধারিত ফরমে পূরণকৃত ও স্বাক্ষরকৃত আবেদনপত্র;

২। প্রয়োজনীয় ফি প্রদানের রশিদ;

৩। ফিটনেস সার্টিফিকেটের মূল কপি;

৪। হালনাগাদ ট্যাক্স টোকেন এর সত্যায়িত ফটোকপি;

৫। TIN সংক্রান্ত কাগজপত্র-এর সত্যায়িত কপি;

৬। অনুমিত আয়কর প্রদানের প্রমাণপত্র;

ট্যাক্স টোকেন

ট্যাক্সটোকেন ইস্যু ও নবায়ন- ১। মোটরযান রেজিস্ট্রেশনের সয়ম ১ম ট্যাক্স টোকেন বিআরটিএ কর্তৃক ইস্যু করা হয়।

২। পরবর্তীতে নির্ধারিত ফি প্রদানস্বাপেক্ষে নির্দিষ্ট ব্যাংক হতে ট্যাক্স টোকেন নবায়ন করা যায়।

 

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

১। পূর্বের ইস্যুকৃত ট্যাক্স টোকেন সার্টিফিকেট (মূল কপি)।

রুট পারমিট

রুট পারমিট ইস্যু ও নবায়ন-রুট পারমিট ইস্যু ও নবায়ন প্রক্রিয়াঃ

 

(ক)   আন্তঃজেলা রুটে চলাচলকারী এক বা একাধিক বিভাগের আওতাধীন রুটে স্টেজ ক্যারেজ (বাস, মিটিবাস) ও কন্ট্রাক্ট ক্যারেজ-এর আবেদনপত্র প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএ সদর কার্যালয়, এলেনবাড়ি, তেজগাঁও, ঢাকা-এ দাখিল করতে হয়।

 

(খ)    আন্তঃজেলা রুটে চলাচলকারী একই বিভাগের আওতাধীন রুটে স্টেজ ক্যারেজ (বাস, মিটিবাস) ও কন্ট্রাক্ট ক্যারেজ-এর আবেদন সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় কমিশনার কর্তৃক ইস্যু/নবায়ন -এর জন্য বিআরটিএ’র বিভাগীয় অফিসে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ দাখিল করতে হয়।

 

(গ)    অনধিক দুই জেলার মধ্যে চলাচলকারী স্টেজ ক্যারেজ, কন্ট্রাক্ট ক্যারেজ এবং যে কোন রুটে চলাচলকারী সাধারণ পরিবহন/প্রাইভেট পরিবহণ (মালবাহী ট্রাক, ভ্যান, ট্যাংকলড়ী ইত্যাতি) মোটরযানের রুট পারমিটের আবেদন সংশ্লিষ্ট এলাকার আঞ্চলিক পরিবহন কমিটি (আরটিসি) কর্তৃক নিস্পত্তি করা হয় যার আবেদনপত্র প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএ’র সংশ্লিষ্ট সার্কেল অফিসে দাখল করতে হয়।

 

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

 

১। নির্ধারিত ফরমে আবেদনপত্র পূরণ ও স্বাক্ষর;

২। প্রয়োজনীয় ফি প্রদানের রশিদ;

৩। চালকের নিয়োগপত্র ও ড্রাইভিংলাইসেন্স-এর সত্যায়িত কপি;

৪। রেজিস্ট্রেশন ও ফিটনেস সার্টিফিকেটের সত্যায়িত ফটোকপি;

৫। রুটপারমিট সার্টিফিকেটের মূল কপি (নবায়নের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য);

৬। হালনাগাদ ট্যাক্স টোকেন এর সত্যায়িত ফটোকপি;

৭। TIN সংক্রান্ত কাগজপত্র-এর সত্যায়িত কপি;

৮। অনুমিত আয়কর জমার রশিদ এর সত্যায়িত ফটোকপি।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter